English Version

সংক্ষিপ্ত তথ্যাবলী

বিদ্যালয় শাখাঃ

বিদ্যালয়ে কেজি, ১ম ও ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। তবে আসন শূন্য থাকলে বছরের প্রথমে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণী বাদে অন্যান্য শ্রেণিতেও ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে কেজি শ্রেণির আসন শুধু বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী এবং অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক মন্ডলীর ছেলেমেয়েদের জন্য সংরক্ষিত। সকল শ্রেণীতে ভর্তির জন্য দরখাস্ত আহবান করা হয়। নির্ধারিত টাকার বিনিময়ে আবেদনপত্র বিতরণ করা হয়। ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে মেধা তালিকা প্রস্তুত করে মেধাক্রম অনুসারে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। ভর্তির সময় তিন কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আবেদনপত্রের সাথে জমা নেওয়া হয়। ভর্তির জন্য নির্ধারিত ফিস এর টাকা অফিসে জমা দিয়ে ভর্তি হতে হয়। ভর্তি সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম ভর্তি কমিটির সুপারিশ ও গভর্নিং বডির সিদ্ধান্ত মোতাবেক পরিচালিত হয়ে থাকে।

 

কলেজ শাখাঃ

  • শিক্ষা বোর্ডের নির্ধারিত ওয়েবসাইট –এর (xiclassadmission.gov.bd) নির্দেশিকা অনুযায়ী শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়।

  • অনলাইনে আবেদনের সকল নিয়মাবলী পূরণ করা সাপেক্ষে প্রার্থীরা টেলিটক সিমের মাধ্যমে অনলাইনের আবেদন ফি প্রদান করতে পারবে।

  • অত্র প্রতিষ্ঠানের জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীরা প্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত ফিসসমূহ অফিসে জমা দিয়ে ভর্তি হতে হয়। ভর্তির সময় ৩(তিন) কপি পাসপোর্ট সাইজ ও ১(এক) কপি স্ট্যাম্প সাইজের ছবি জমা দিতে হয়।

  • ভর্তিকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের মূল একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট/নম্বরপত্র বিদ্যালয় অফিসে জমা থাকে এবং তা এইচএসসি পরীক্ষা পাশ করার পরই ফেরত দেওয়া হয়। একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট/নম্বরপত্র ভুয়া প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট ছাত্র/ছাত্রীর ভর্তি বাতিল করা হয় এবং শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

  • একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির পর বোর্ড নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এবং বোর্ডের অনুমোদন সাপেক্ষে বিষয় পরিবর্তন করা যায়।

  • বোর্ডের নিয়ম অনুযায়ী বিশেষ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানে ছাড়পত্র (টিসি) এর মাধ্যমে আসন শূন্য থাকলে নির্ধারিত জিপিএ প্রাপ্তদের ভর্তির সুযোগ দেওয়া হয়।

  • ভর্তি সংক্রান্ত ব্যাপারে ভর্তি কমিটি ও গভর্নিং বডির সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য করা হয়।